ঢাকা মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪ 

মাত্র ১০ উপায়ে বাড়বে মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা 

দ্য নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৬:১২, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

আপডেট: ১৬:৩২, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

শেয়ার

মাত্র ১০ উপায়ে বাড়বে মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা 

সাম্প্রতিককালে সব থেকে বড় একটি সমস্যা হয়ে দাড়িয়েছে স্মৃতিভ্রষ্ট বা ভুলে যাওয়া। বিজ্ঞানের ভাষায় যাকে বলে ডিমনেশিয়া। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, সাড়ে পাঁচ কোটি মানুষ এই ডিমনেশিয়ায় আক্রান্ত। এর মূল কারণ হিসেবে ধরা যায় জীবনের অতিরিক্ত স্ট্রেস। এটি এমন পর্যায় দাঁড়িয়েছে যে, কখন কি খেয়েছে, কোথায় কি রেখেছে এমনকি কোন জায়গায় অবস্থান করছে তা হঠাৎ করে মনে করা যায় না। আর এ সমস্যাটা বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে বেড়ে যায়। একটা পর্যায় এ সমস্যাটা এতো বেশি বেড়ে যায় যে, সময়ের সাথে সাথে এটি তীব্র থেকে আরও তীব্রতর হয়। তবে এক্ষেত্রে হতাশ হওয়ার কিছু নেই বলে আশ্বস্ত করেছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা কিছু গাইডলাইন দিয়েছেন মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধির, যা মেনে চললে মগজের শক্তি বাড়ানো যাবে সহজেই। সেগুলো নিম্নরূপ:

১.    হাঁটা-চলায় বাড়িয়ে তুলুন মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা 
গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে, এক জায়গায় বসে থেকে কোন শব্দ বা বাক্য আয়ত্তে আনলে যতটা না মনে থাকে; তার থেকে বেশি স্মৃতিতে গাঁথা হয়ে যায় হেঁটে হেঁটে মুখস্ত করলে। যারা অভিনয় করে তারাও এইরকম ট্রিক্স ফলো করে। তাই চেষ্টা করুন হেঁটে হেঁটে মুখস্ত করার।

২.    ব্যায়াম করা 
ব্যায়াম এমন একটা শারীরিক পরিশ্রম যার মাধ্যমে শরীর তো ফিট থাকে তেমনি ব্রেইনের কার্যক্ষমতাও বাড়ায়। সেটা কিভাবে? ব্যায়াম করলে মস্তিষ্কের সিন্যাপসের সংখ্যা বাড়ে পাশাপশি মগজে প্রচুর পরিমাণে অক্সিজেন ও গ্লুকোজ সরবরাহ হয়। এতে মগজে নতুন নতুন কোষ তৈরি হয়। এবং এটি স্মৃতিশক্তি ধরে রাখতে ও বৃদ্ধিতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে।  

৩.    মস্তিষ্কের সঠিক খাবার গ্রহণ করুন
আপনি জানেন কি আপনি যেই খাবার গ্রহণ করছেন তার ২০% মস্তিষ্কে পৌঁছায়? তার মানে আপনার পেট শান্তি তো মাথা শান্তি। আর মস্তিষ্কের সম্পূর্ণ কাজ কিন্তু গ্লুকোজ করে। তাই প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় এমন কিছু খাবার তালিকাভুক্ত করতে হবে যা আপনার ব্রেইনকে একটিভ রাখতে সাহায্য করবে। আর জানেন তো, পাকস্থলিকে দ্বিতীয় মগজ বলা হয়। কারণ আমাদের পাকস্থলিতে একশ’ ট্রিলিয়নেরও বেশি অনুজীব বসবাস করে যা সরাসরি আপনার মস্তিষ্কের সাথে সংযোগ রাখে। পেটে স্বাস্থ্যকর খাবার ঢুকলে তার সুফল এবং অস্বাস্থ্যকর খাবারে তার কুফল মস্তিষ্ক পর্যন্ত পৌঁছায়। কিছু কিছু ফ্যাট সুফল বয়ে আনে তাই তা বাদ দেয়া যাবে না। যেমন সামুদ্রিক মাছের ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড, আখরোট, কাঠ বাদাম, ডার্ক চকলেট, গ্রীন টি, কাঠ বাদাম, বিভিন্ন তেলের বীজ, পালংশাক, শাক-সব্জী ইত্যাদি। এগুলো মস্তিষ্কের খাবার।  

৪.    কফি বাড়াবে মস্তিষ্কের শক্তি
বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে যে মস্তিষ্কের বয়সও বাড়ে এবং এতে করে ভুলে যাওয়ার প্রবণতাও বাড়ে। বিশেষ করে মেয়েদের। একটি গবেষণায় দেখা গেছে, দিনে দুইবার কফি পান করলেও উপকার পাবেন। কফি মস্তিষ্কের বয়স ধরে রাখতে সাহায্য করে। 
  
৫.    বিশ্রামের সময় পরীক্ষার পড়া
এক সমীক্ষায় দেখা গেছে কোন পড়া যদি রাতে বিশ্রামের সময় আয়ত্ত করা যায় তাহলে তা খুব সহজেই মনে রাখা যায়। আর তা মনেও থাকে দীর্ঘ সময়ের জন্য। সেই একই পড়া যদি কেউ সন্ধ্যায় পড়ে তাহলে তা মনে রাখা কঠিন হয়ে পড়ে। আর তাই রাতে ঘুমানোর আগে পড়াগুলো মনে করতে করতে ঘুমান। এবং ঘুমানোর আগে ভালো দিকগুলো ভাবতে ভাবতে ঘুমান। কারণ নেতিবাচক সবকিছুই ব্রেইনের জন্য ক্ষতির। তাইতো রাতে হরর সিনেমা দেখাও ঠিক নয়। 

৬.    কোরআন তেলাওয়াত শোনা 
ঘুমের গুরুত্ব যে কতখানি তা আর নতুন করে বলার কিছু নেই। ঘুম মানুষের ব্রেইনকে শান্ত রাখে, প্রতিদিনের কাজের জন্য ব্রেইনকে একটিভ রাখে। মেলাটোনিন নামের একজাতীয় হরমোন ঘুম আসার ক্ষেত্রে সাহায্য করে থাকে। কোরআন তিলাওয়াত, তাফসির শোনা বা বই পড়ার সময় মানুষের মস্তিষ্ক প্রশান্ত থাকে। যার ফলে "মেলাটোনিন" নিঃসরণ সহজ হয়। আর মেলাটোনিন ঘুম আসতে সাহায্য করে।

৭.    নতুন কিছু ভাবুন ও করুন
প্রতিদিন নতুন নতুন কিছু করার চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিন নিজেকে। এটি আপনার মগজের শক্তি আরও বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে। মোট কথা ব্রেইনকে ব্যস্ত রাখতে হবে নতুন নতুন কাজের মাধ্যমে। 

৮.    নিজেকে বিনোদন দেওয়া 
দুশ্চিন্তা ব্রেইনের জন্য অনেক ক্ষতিকর। অতিরিক্ত চিন্তা ব্রেইনের কার্যক্ষমতা কমিয়ে দেয় । তাই নিজেকে ও নিজের মগজকে কাজের ফাঁকে অবসর ও বিনোদন দিতে হবে। রিল্যাক্স করার জন্য যোগব্যায়াম কিংবা মাইন্ডফুলনেস চর্চার সাহায্য নিতে পারেন। এগুলো আপনার দেহের স্ট্রেস হরমোন কমাতে সাহায্য করবে। তবে মাঝে মাঝে সামান্য স্ট্রেস নিতেই পারেন। তাতে আপনার বিপদের সময় বা জরুরি প্রয়োজনে পরিস্থিতিকে দ্রুত মোকাবিলার শক্তি পাবেন।

৯.    নিয়মিত চেকআপ করা
হৃদপিন্ডের নানারকম ঝুঁকির কারণে ব্রেইনের ক্ষমতা হ্রাস পায়। তাই চেষ্টা করবেন মাসে অন্তত: একবার হলেও রুটিন করে রক্তচাপ, ডায়বেটিস, কোলেস্টরলের মাত্রা পরীক্ষা করানোর। 

১০.    পায়ের আঙুল ম্যাসাজ
চেষ্টা করুন প্রতিদিন ৫ মিনিট করে পায়ের আঙুল ম্যাসাজ করার। প্রথমে আঙুলের উপরিভাগ থেকে শুরু করে হালকা করে চাপ দিতে দিতে নিচের দিকে যান। এই ম্যাসাজ মস্তিষ্কের কোষের সাথে যোগাযোগ স্থাপনে সাহায্য করে।

দ্য নিউজ/ এনজি

live pharmacy
umchltd

সম্পর্কিত বিষয়: