ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪ 

ইনবক্সে হাই-হ্যালো, তারপর কি বাই বাই 

অর্পিতা জাহান

প্রকাশিত: ১৪:৩৬, ২১ মার্চ ২০২৪

আপডেট: ১৫:০২, ২১ মার্চ ২০২৪

শেয়ার

ইনবক্সে হাই-হ্যালো, তারপর কি বাই বাই 
প্রতীকী ছবি

কয়েকবছর আগেও প্রেম-বন্ধুত্ব হতো স্কুল, কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে। চলার পথে কাউকে পছন্দ হলেও বলার ছিলো না সহজ উপায়। নিতে হতো কত শত লুকোচুরির আশ্রয়। দেখা করা কিংবা কথা বলার সুযোগ হতো না সহজে। বেশিরভাগ সময়ে মুখে বলতে পারা যেতো না মনের সব কথা। বলতে না পারা সেই অব্যক্ত কথা মনের মাধুরী মিশিয়ে লিখতে হতো কাগজে। এক্ষেত্রে হতে হতো কৌশলীও। যাতে প্রিয় মানুষকে লেখা ওই চিঠি অন্য কারো হাতে পড়লেও সহজে সে না বোঝে। লেখার চেয়ে বেশি কষ্টকর ছিলো চিঠি মনের মানুষের কাছে পৌঁছানো। অনেক সময় চিঠি দিতে হতো ‘ডাকে’। কখনো কারো মাধ্যমে, কখনো বা নিজে হাতে। 

অবশেষে বিংশ শতাব্দীর প্রথম দশকে এতো সব বিড়াম্বনার অবসান ঘটে। সহজ সমাধান নিয়ে আসে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, ফেসবুক। যার মাধ্যমে মুহুর্তেই মনের মানুষকে লেখা ও দেখার সুযোগ তৈরি হয়। এখন ফেসবুকে অ্যাকাউন্ট নেই এমন মানুষ খুব কমই আছে। এরপর সময়ের সাথে সাথে আরো বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম চলে আসে। যার মাধ্যমে যে কাউকেই ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট, ফলো করা, ম্যাসেস বা ভিডিও কল দেওয়া যায়।

এখন সম্পর্কের শুরু হয় শুধু এক ক্লিকে। তবে রিকোয়েস্ট বা ম্যাসেস দিলেই তো সম্পর্ক গড়ে উঠে না। তার জন্য কিছু স্টেপ তো পার করতেই হবে। অনেকেই আছেন ফেসবুকে হাই, হ্যালো, কেমন আছেন- ছাড়া কিছুই বলতে পারে না। আবার অনেকেই আছেন শুরুতেই প্রশ্ন করে বসেন, আপনি সিঙ্গেল? এমন বিভিন্ন অপ্রত্যাশিত প্রশ্নে কথোপকথনের শুরুতেই আপনার পছন্দের মানুষটি পড়েন বিব্রতকর পরিস্থিতিতে। তখনই ঘটে বিপত্তি। তিনি হয় আপনাকে আনফ্রেন্ড, নয়তো ব্লক, নয়তো বা আপনাকে ইগনোর করে রিপ্লে দেওয়া থেকে বিরত থাকেন। ফলে আপনার আর এগোনের সুযোগ থাকে না। 

দ্য নিউজের আজকের প্রতিবেদনটি সেই সব মানুষদের জন্য, যারা চ্যাট করতে গিয়ে হাই হ্যালোর পর আর এগোতে পারেন না। চলে যান ব্লক, আনফ্রেন্ড কিংবা ইগনোরের লিস্টে। জানাবো হাই, হ্যালো করার পর সম্পর্ক এগিয়ে নেওয়ার কিছু কৌশল... 

যা বলছিলাম, আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা হাই, হ্যালো কেমন আছো এরপর আর কিছুই বলতে পারে না। সেক্ষেত্রে আপনি যার সাথে কথা বলতে চাচ্ছেন তার আগ্রহের বিষয় নিয়ে কথা বলতে পারেন, তার আগ্রহের বা পছন্দের বিষয় জানতে বেশি দূর যাওয়ার কোন দরকার নেই। তার প্রোফাইলটা একটু ঘাঁটাঘাঁটি করলেই বুঝতে পারবেন। সে অনুযায়ী কথা শুরু করবেন। পোশাক, খেলা বা অন্য কোনো কিছুর প্রতি আগ্রহ থাকলে তা নিয়ে প্রশ্ন করবেন। মূল কথা হলো, আপনি যার সঙ্গে কথা বলছেন তার আগ্রহের বিষয় নিয়েই বলবেন। মাথায় রাখতে হবে সবার থেকে একটু ভিন্ন কিছু বলবেন। ভিন্নভাবে উপস্থাপন করবেন। যে কথা বা প্রশ্ন আপনাকে সবার থেকে আলাদা করে দেবে। যাতে আপনার প্রতি একটা আগ্রহ তৈরি হয়।

প্রশংসা করা 

স্বভাবতই আমরা প্রশংসা শুনতে খুব পছন্দ করি। ব্যাস আপনি এই ট্রিকস টাই কাজে লাগাতে পারেন। ওই ব্যক্তির সৌন্দর্যের প্রশংসা করতে পারেন। তবে তা অবশ্যই সুযোগ বুঝে। তা হতে পারে তার চুল, চোখ, চাহোনি, হাসির। এতে করে কিন্তু অনেক প্রভাবিত করবে আপনার পছন্দের মানুষটিকে। 

পোশাকের প্রশংসা 

মেয়েরা কিন্তু পোশাকের ব্যাপারে একটু বেশিই সৌখিন। কাজেই শুরুতেই তাঁর পোশাকের প্রশংসা করতে পারেন। এতো সুন্দর সুন্দর ড্রেস কোথা থেকে কেনেন তা জানতে চাইতে পারেন। উত্তর বুঝে আলোচনা আগাতে পারেন তার পছন্দের পোশাক, রং, ফ্যাশন, লাইফস্টাইল নিয়ে ।

পছন্দের বিষয় নিয়ে কথা বলা

পছন্দের মানুষের ভালোলাগার বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলতে পারেন। তার কি পছন্দ আর কি অপছন্দ। তার পছন্দের বিষয়গুলো আপনার অপছন্দের হলেও আপনি অবশ্যই তার পছন্দকে গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা আগাবেন। কোনো ভাবেই আপনার সম্পর্কে যেন তার নেতিবাচক ধারণা না হয়। ধরুণ আপনার পছন্দের মানুষের বই পড়া খুব পছন্দের। এটা তার আবেগের জায়গা। কিন্তু আপনার বই পড়া মোটেও পছন্দের বিষয় না। আপনি কি এটা তাকে বলবেন? না, মোটেও এ কথা বলা যাবে না। আপনারও তাকে বোঝাতে হবে-আপনিও বই পড়তে ভীষন পছন্দ করেন। বই পড়া আপনার মারাত্মক নেশা। এভাবে যদি ব্যাটিং করতে পারেন তাহলে আর কোনো বিষয়ই না, কথার সঙ্গে সর্ম্পকও এগোবে।

সহযোগিতা চাওয়া 

সহযোগিতা চাওয়া মানে এই না যে আপনি টাকা চাইবেন। মোটেও না। তাহলে গিট বাঁধার আগেই ছুটে যাবে। খুটি নাটি বিষয়ে তার কাছে সহযোগিতা চাইবেন। যেমন পোশাক নির্বাচনে সহযোগিতা, তা হতে পারে অনলাইনে কোনো পোশাকের ছবির লিংক দিয়ে তাকে পছন্দ করে দিতে বলা বা অন্য কোনো বিষয়ে সহযোগিতা চাইতে পারেন। যেটা তাকে বোঝাবে যে আপনি তার উপর নির্ভর করেন, তাকে গুরুত্ব দেন।

পরামর্শ চাওয়া 

যে কোন বিষয়ে তার কাছে পরামর্শ চাইবেন। তাহলে কি হবে জানেন? সে মনে করবে আপনি তাকে গুরুত্ব দিচ্ছেন। কেন জানেন? কারণ আমরা যাকে বেশি গুরুত্ব দেই, তার কাছেই সব বিষয়ে পরামর্শ চাই। 

এইতো, এই ট্রিকস্ গুলো ফলো করলেই আপনি সাকসেস । আর হ্যা অবশ্যই মনে রাখবেন, সুন্দর মার্জিত কথোপকথন শুধু প্রেমের ক্ষেত্রে নয়; একটা ভালো বন্ধুত্ব গড়ার ক্ষেত্রেও অনেক তাৎপর্য বহন করে ।

দ্য নিউজ/ এজে/ এনজি

live pharmacy
umchltd

সম্পর্কিত বিষয়: