ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪ 

৪০ এর আগেই চোখে সমস্যা? জেনে নিন লক্ষণ ও প্রতিকার

লাইফস্টাইল ডেস্ক

প্রকাশিত: ২০:২৯, ১০ মার্চ ২০২৪

আপডেট: ২০:৫১, ১০ মার্চ ২০২৪

শেয়ার

৪০ এর আগেই চোখে সমস্যা? জেনে নিন লক্ষণ ও প্রতিকার

এত সুন্দর পৃথিবীকে দেখতে যদি আপনার চশমার ব্যবহার প্রয়োজন হয় তাহলে এই দলে আপনি একা নন। চল্লিশ পেরিয়ে চোখে সমস্যা দেখা দিলে তা নতুন কিছু নয়। কিন্তু এই বয়সের আগেই যদি চোখের সমস্যায় পড়তে হয় , তাহলে তা নিতান্তই অপ্রত্যাশিত। ইদানীং কমবয়সেই চোখ নিয়ে নাজেহাল হতে হচ্ছে। এর অন্যতম প্রধান কারণ দীর্ঘ ক্ষণ ল্যাপটপ, মোবাইলের দিকে তাকিয়ে থাকা। আমাদের দৈনন্দিন অনেক প্রয়োজনে এবং পেশাগত কারণে মোবাইল ও ল্যাপটপে অনেকটা সময়ই ব্যস্ত সময় কাটে। মোট কথা আমাদের চোখের সিংহভাগ সমস্যার মূল কারণ এই ডিভাইসগুলো। এছাড়াও রয়েছে অপর্যাপ্ত ঘুম, অপুষ্টিজনিত সমস্যা, অতিরিক্ত ক্লান্তি, চোখের অযত্ন। এই কারণগুলোই যথেষ্ট চোখের সমস্যা সৃষ্টির। তাহলে কখন বুঝবেন যে আপনার সত্যিই চশমা নেওয়া প্রয়োজন?

ঝাপসা দৃষ্টি 
দৃষ্টিশক্তি হঠাৎ করে একদিনে ঘোলা হয় না । একটু একটু করে সময় নিয়ে প্রক্রিয়াটি হয়। অনেক সময় সঙ্গে সঙ্গে অনেকে বুঝতেও পারেন না যে তার দৃষ্টিশক্তি আর আগের মতো তীক্ষ্ণ নেই। এই ক্ষেত্রে দূরের জিনিস বা খুব কাছের জিনিস দেখতে সমস্যা অথবা 'অ্যাস্টিগমেটিজম' (চোখের আকৃতি ঠিকঠাক না হওয়ায় দৃষ্টিশক্তি ঝাপসা হওয়া) হওয়া।

পড়তে সমস্যাবোধ করা
রেষ্টুরেন্টে গিয়েছেন, তবে খাবার অর্ডার করতে পারছেন না? কারণ মেন্যু কার্ডটা একেবারে নাকের কাছে নিয়ে দেখতেও সমস্যা হচ্ছে। বই পড়তে সমস্যা হচ্ছে। দূরের কোন লেখা পড়তে তো আরও সমস্যায় পড়তে হচ্ছে । তখন বুঝতে হবে আপনার চশমা দরকার। চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া দরকার।

ঘনঘন মাথ ব্যথা
মাথা ব্যথার দেড়শ’র বেশি কারণ ও ধরণ রয়েছে । প্রায়ই মাথাব্যথার সমস্যায় ভোগেন এমন যে কারও দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া উচিত । যদি মনে হয় অনেকটা সময় একদিকে তাকিয়ে থাকার কারণে যদি চোখ ব্যথা করে তাহলে বুঝতে হবে চোখের সমস্যা এবং সময় নষ্ট না করেই চক্ষু বিশেষজ্ঞর পরামর্শ নেওয়া।

রাতে গাড়ী চালাতে সমস্যা
একসময় রাস্তা পুরোপুরি পরিষ্কারভাবে দেখতেন, কিন্তু রাতের বেলা এখন আর দেখেন না, তার মানে আপনার হয়তো 'নাইট ব্লাইন্ডনেস' আছে। এর ফলে রাতে যে কম আলো থাকে, চোখ তার সাথে মানিয়ে নিতে পারে না। আর এই সমস্যায় সমাধান করতে পারে নতুন চশমা ।

এছাড়াও চোখের যত্নে এবং দৃষ্টিশক্তি ভাল রাখতে, চোখের নীচের ফোলা ভাব কমাতে, চোখ থেকে জল পড়ার মতো সমস্যা কমাতে শুধু বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়া জরুরী নয়; খাদ্যাভ্যাসেও বদল আনা জরুরি।   

বিটা ক্যারোটিন
চোখের যত্নে, দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে গাজরের ভূমিকা অনন্য । এছাড়াও রয়েছে পালং শাক, লেটুস, টমেটো, মিষ্টি আলু, ব্রকলি। সাধারণভাবে, ফল বা সবজির রঙ যত বেশি তীব্র হয়, তাতে বিটা-ক্যারোটিন তত বেশি থাকে। নিয়মিত বিটা ক্যারোটিন সমৃদ্ধ খাবার চোখের সংক্রমণও রোধ করে ।

ওমেগা ফ্যাটি এসিড 
ওমেগা ফ্যাট বেশি পাওয়া যায় মাছে । চোখের জন্য অনেক এটি খুবই গুরুত্বপুর্ণ। যে সব মাছে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিডের পরিমাণ বেশি, তা বেশি করে খাওয়া প্রয়োজন যেমন বিভিন্ন সামুদ্রিক মাছ, ইলিশ, রুই, কাতল । এই ধরনের খাবারে চোখের মণি ভাল থাকে। দৃষ্টিশক্তিও বাড়ে। চোখ শুকিয়ে যাওয়ার সমস্যাও কমে।

ভিটামিন এ 
দৃষ্টিশক্তি প্রখর ও চোখের যত্নে অন্যতম অপরিহার্য একটি উপাদান হল ভিটামিন এ। সূর্যের ক্ষতিকারক অতিবেগনি রশ্মি থেকে চোখ সুরক্ষিত রাখতেও ভিটামিন এ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটি চোখের অসুখের ঝুঁকি কমাতে দারুণ কাজ করে। দুধ, দইয়ের মতো ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাবার বেশি করে খাওয়া জরুরি যদি চোখের দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে চান।

ভিটামিন সি
ভিটামিন সি যে কতটা উপকারী, আমাদের দৈহিক পুষ্টির জন্য তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এটি যেমন ত্বকের খেয়াল রাখে তেমনি দাঁত ও চোখেরও । যেমন কমলা লেবু চোখের জন্য অত্যন্ত কার্যকর । এটি চোখের সংক্রমণ রোধ করতেও সমানভাবে কাজ করে। 

এছাড়াও যেই বিষয়টির উপর আরও বেশি গুরুত্ব দেওয়া প্রয়োজন তা হলো  চোখ ভাল রাখতে যতটা সম্ভব কাজের ফাঁকেই চোখের বিশ্রাম নেওয়া জরুরি। 

দ্য নিউজ/ এজে/ এএস

live pharmacy
umchltd