ঢাকা মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪ 

বেইলি রোড ট্র্যাজেডি: মৃত্যুর মিছিলে হবিগঞ্জের মা ও মেয়ে

হবিগঞ্জ সংবাদদাতা

প্রকাশিত: ১৫:৪৬, ২ মার্চ ২০২৪

আপডেট: ১৫:৫৯, ২ মার্চ ২০২৪

শেয়ার

বেইলি রোড ট্র্যাজেডি: মৃত্যুর মিছিলে হবিগঞ্জের মা ও মেয়ে
কাচ্চি ভাইয়ে আগুনে প্রাণ গেলো মা রুবি রায় ও কন্যা প্রিয়াংকা রায়ের

ঢাকার মালিবাগের বাসা থেকে মা-মেয়ে গিয়েছিলেন বেইলি রোডের কাচ্চি ভাইয়ে। রাতের খাবার শেষে আবার ফিরে যাওয়ার কথা ছিল আপন নীড়ে। কিন্তু আগুন পুড়িয়ে দিয়েছে সব স্বপ্ন।

আজ শনিবার (৩ মার্চ) সকাল সাড়ে দশটার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গ থেকে নিকট আত্মীয় অয়ন রায় নিহত রুবি রায় (৪০) এবং তাঁর মেয়ে প্রিয়াঙ্কা রায় (১৭)’র মরদেহ গ্রহণ করেন। সেখান থেকে তাদের লাশ নিয়ে যাওয়া হয় গ্রামের বাড়ি হবিগঞ্জের মাধবপুরে।

নিহতরা মাধবপুর উপজেলায় বানেশ্বরপুর গ্রামের পোল্যান্ড প্রবাসী উত্তম কুমার রায়ের স্ত্রী- সন্তান। নিহত রুবি রায় ফিলিপাইনের নাগরিক। প্রায় ২৮ বছর আগে বাংলাদেশি নাগরিক উত্তম কুমারকে বিয়ে করে বাংলাদেশে আসেন।   

মাধবপুর থানা পুলিশ জানায়, গত বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাতে বেইলি রোডে ‘কাচ্চি ভাই রেস্তোরাঁ’ থেকে খাবার আনতে যান মা রুবি ও মেয়ে প্রিয়াংকা। এ সময় সেখানে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আরো অনেকের সাথে নিহত হন তারা। 

নিহত প্রিয়াংকার বড় চাচা বিষ্ণু রায় বলেন, উত্তম ১৯৯৬ সালে দক্ষিণ কোরিয়ায় একটি কোম্পানিতে প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত থাকা অবস্থায় সেখানে ফিলিপাইনের নাগরিক রুবি রায়কে বিয়ে করেন। পরবর্তী সময়ে উত্তম পোল্যান্ড যান। এ সময় তিনি স্ত্রী-কন্যাকে দেশে রেখে গিয়েছিলেন। মা-মেয়ে রাজধানীর মালিবাগে থাকতেন। স্ত্রী-কন্যার মৃত্যুর সংবাদে উত্তম রায় পোল্যান্ড থেকে বাংলাদেশের উদ্দেশে রওনা হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার রাতে বেইলি রোডে বহুতল একটি ভবনে আগুনের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪৬ জন নিহত হয়েছেন জানা গেছে।

দ্য নিউজ/ এনজি

live pharmacy
umchltd

সম্পর্কিত বিষয়: